শিরোনাম :
কচুয়ায় চেতনা যুব নারী সংস্থার উদ্যোগে এতিম ও গরীব শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাসামগ্রী বিতরণ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে বাধা সৃষ্টিকারী পাকিস্তানী প্রেতাত্তাদের স্বপ্ন পুরন হয়নি হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি সীতাকুণ্ডে সন্ত্রাসী হামলায় দুই যুবক গুরুতর আহত বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্বাস আলী খান স্মরণে নাইট ক্রিকেট টূর্নামেন্ট উদ্বোধন অনেকটা অর্থাভাবে চসিক; প্রকল্প গ্রহণেও নেই আগ্রহ প্রধানমন্ত্রীর “উপহার ঘর” চাচ্ছে গুরুদাসপুরের বঞ্চিত হরিজন সম্প্রদায়ের সদস্যরা কচুয়া প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদকের সুস্থ্যতায় দোয়া কামনা বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্বাস আলী খান স্মরণে নাইট ক্রিকেট টূর্নামেন্ট উদ্বোধন ব্যারিষ্টার মওদুদ আর নেই সিরাজদিখানে অবৈধ ভাবে খাল ভরাট, প্রশাসনের বাঁধায় বন্ধ

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা পেছানোর দাবিতে ফেসবুক গ্রুপে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১০৭২ বার পঠিত

মেহেদী হাসান মামুন, চলন বিল প্রতিনিধি

করোনার মধ্যে ঝুঁকি নিয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে চান না এমবিবিএস ও বিডিএস কোর্সে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা। তাই আগামী ২ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা পেছানোর দাবি তুলেছেন তারা।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পুরোপুরি শেষ হয়নি। যারা ভর্তি পরীক্ষা দেবেন তাদের ভ্যাকসিনও দেয়া হয়নি। এছাড়া সব বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা ঈদের পর নেয়া হবে। সেখানে মেডিকেলের পরীক্ষা নিতে কেন এত তাড়াহুড়ো। তবে যদি ২ এপ্রিলের পূর্বে মেডিকেলে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন নিশ্চিত করা হয় তাহলে তারা ভর্তি পরীক্ষা দিতে রাজি বলেও জানান তারা।

এ প্রসঙ্গে মেডিকেলে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা একটি ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে জানান(করোনায় মেডিকেল এডমিশন নয়!
পিছিয়েছে সব ভার্সিটি পেছাতে হবে মেডিকেলও), আমরা এখনো সেইফ জোনে নেই। দেশে ভ্যাকসিন কার্যক্রম শুরু হলেও শিক্ষার্থীদের দেয়া হয়নি। আমরা সবাই ভ্যাকসিন নেওয়ার পরই ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে চাই। ভর্তি পরীক্ষার সঙ্গে শুধু আমরাই নয়, আমাদের পরিবারও জড়িত। তাই আমরা ঝুঁকিমুক্ত পরিবেশে ভয়-ভীতিহীনভাবে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে চাই। সব ভর্তি পরীক্ষা ঈদের পর নেয়া হচ্ছে। তাহলে মেডিকেলে কেন এত আগে নেয়া হবে? অবিলম্বে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা তারিখ পেছানো হোক।

আরও বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর ঘোষণার প্রতি সম্মান দেখিয়ে বিইউপি তাদের পরীক্ষা স্থগিত করেছে। এছাড়া সব বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা ঈদের পর নেয়া হবে। সেখানে আমরা কেন স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে পরীক্ষায় বসবো? শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে এইচএসসির মতো গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। স্কুল-কলেজ সব বন্ধ রয়েছে। তাহলে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা কেন পেছানো হবে না। আমরা ভ্যাকসিন না নিয়ে ভর্তি পরীক্ষায় বসতে চাই না।

আরও বলেন, এবার অনেক শিক্ষার্থী ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেবেন। পরীক্ষার্থী এবং অভিভাবক মিলে প্রায় ৩/৪ লাখ মানুষের সমাগম হবে। ফলে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে গিয়ে শিক্ষার্থী অথবা তার অভিভাবকদের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। যদি কেউ আক্রান্ত হয় তাহলে তার দায়ভার কে নেবে? সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার মতো ঈদের পর মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনের দাবি জানাচ্ছি।

প্রসঙ্গত, গত ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ও বিডিএস কোর্সে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর। প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আগামী ২ এপ্রিল এমবিবিএস ও ৩০ এপ্রিল বিডিএস কোর্সের ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার কথা রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
Developed by banglawebs