শিরোনাম :
কচুয়ায় চেতনা যুব নারী সংস্থার উদ্যোগে এতিম ও গরীব শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাসামগ্রী বিতরণ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে বাধা সৃষ্টিকারী পাকিস্তানী প্রেতাত্তাদের স্বপ্ন পুরন হয়নি হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি সীতাকুণ্ডে সন্ত্রাসী হামলায় দুই যুবক গুরুতর আহত বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্বাস আলী খান স্মরণে নাইট ক্রিকেট টূর্নামেন্ট উদ্বোধন অনেকটা অর্থাভাবে চসিক; প্রকল্প গ্রহণেও নেই আগ্রহ প্রধানমন্ত্রীর “উপহার ঘর” চাচ্ছে গুরুদাসপুরের বঞ্চিত হরিজন সম্প্রদায়ের সদস্যরা কচুয়া প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদকের সুস্থ্যতায় দোয়া কামনা বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্বাস আলী খান স্মরণে নাইট ক্রিকেট টূর্নামেন্ট উদ্বোধন ব্যারিষ্টার মওদুদ আর নেই সিরাজদিখানে অবৈধ ভাবে খাল ভরাট, প্রশাসনের বাঁধায় বন্ধ

বগুড়ার শেরপুরে শিক্ষা প্রনোদনা পেতে প্রত্যয়নের নামে টাকা নেয়ার অভিযোগ

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১
  • ৭০ বার পঠিত

উত্তম সরকার,শেরপুর(বগুড়া)প্রতিনিধি:

বগুড়ার শেরপুরে করোনা ভাইরাসের কারণে শিক্ষার্থীদের প্রনোদনা পাওয়ার জন্য বিদ্যালয় থেকে প্রত্যয়নপত্র
দিতে টাকা নেয়ার অভিযোগ উঠেছে ফুলজোড় উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বেল্লাল হোসেনের বিরুদ্ধে।
জানা যায়, সরকারিভাবে দেয়া িি.িংযবফ.মড়া.নফ নামক একটি ওয়েব সাইটে কোভিড ১৯ পরিস্থিতি
বিবেচনায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষক-শিক্ষিকা ও ছাত্র-ছাত্রীদের বিশেষ অনুদান প্রদানের লক্ষে অনলাইনে আবেদন
করতে বলা হয়। এর কতটুকু সত্যতা আছে তা কেউ জানেনা। আর এ কারণে প্রয়োজন হয় প্রত্যেক বিদ্যালয়ের
প্রধান শিক্ষক কর্তৃক প্রত্যয়নপত্র। এরই প্রেক্ষিতে উপজেলার সকল বিদ্যালয়ের দেখা যায় শিক্ষার্থীদের উপচে পড়া
ভীড়। আর এই সুযোগেই ফায়দা লুটতে প্রস্তুত কিছু অসাধু ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা। এরই ফলশ্রুতিতে
উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের ফুলজোর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রত্যয়নপত্র দেয়ার কথা বলে
ছাত্র প্রতি ১০০ থেকে ১২০ টাকা করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।
এ ব্যাপারে ওই বিদ্যালয়ের নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী জানায়, আমাদের কাছ থেকে প্রধান শিক্ষক
১০০ টাকা নিয়ে প্রত্যয়নপত্র দিয়েছে। টাকা না দিলে অনুদানের অর্থ পাওয়া যাবেনা বলে আমাদের কাছ থেকে এ
টাকা নিয়েছে।
এ প্রসঙ্গে ফুলজোর উচ্চ বিদ্যালয়ের দপ্তরী মো. রাজু বলেন, প্রত্যয়ন পত্র নেয়ার কথা বলে কোন টাকা নেয়া
হয়নি। তবে অনলাইনে আবেদন করার কথা বলে ১০০ টাকা করে নেয়া হয়েছে।
এ ব্যাপারে ফুলজোর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. বেল্লাল হোসেন বলেন, আমি কোন টাকা নেইনি।
অফিসের দপ্তরী রাজু কিছু টাকা নিয়েছে বলে আমার কাছে খবর এসেছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নজমুল হক বলেন, প্রত্যয়ন পত্র দেয়ার কথা বলে টাকা
নেয়ার কোন বিধান নেই। কেউ যদি এ ধরনের কাজ করে থাকেন তাহলে ভুল করেছেন। এই সকল বিষয়ে
অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
Developed by banglawebs